স্বরস্বতী পুজো কেন “বাঙালীর ভ্যালেন্টাইন্স ডে”?

পৃথা ভট্টাচার্যঃ ‘‘যতই থাক ভ্যালেন্টাইনস ডে বা দুর্গাপুজো। প্রেম করার জন্য সরস্বতী পুজোর দিনটার সঙ্গে কোনও কিছুর যেন তুলনা হয় না।’’আজ স্বরস্বতী পুজো অর্থাৎ বাঙালীর ভ্যালেন্টাইন্স ডে। প্রতিবছর এই দিনটির জন্য অপেক্ষা করে থাকেন বাঙালীরা।   প্রতিবছর ১৪ ফেব্রয়ারি ভ্যালেন্টাইন্স ডে হিসাবে পালিত হলেও যুগ যুগ ধরে স্বরস্বতী পুজোর  দিনটাতেই বাঙালীরা ভ্যালেন্টাইন্স দিবস হিসাবে পালন করে আসছে। ক্যালেন্ডারের পাতায় ১৪ ফেব্রয়ারি ভ্যালেন্টাইন্স ডে বা ভ্যালেন্টাইন্স সপ্তাহ পালন করা হোক না কেন স্বরস্বতী পুজো মানেই বাঙালীর ‘অঘোষিত প্রেম দিবস’।

কিন্তু কেন স্বরস্বতী পুজোকে বাঙালীর ভ্যালেন্টাইন্স  ডে বলা হয় জানেন? আসুন জেনে নেই তাহলে।

 

বসন্ত এসে গেছেঃ যুগ যুগ ধরে বসন্ত কালেই হয়ে আসছে স্বরস্বতী পুজো। বসন্ত কাল মানেই প্রেমের মাস। বসন্ত আসলেই যেন মনে পড়ে যায় একরাশ বিপদের মাঝখানে শুয়ে আছি কানাঘুষা শোনা যায় বসন্ত এসে গেছে’ এই গানটি। বসন্ত মানেই চারিদিকে ফুলে ভরা,কোকিলের কুহুতান, শীত সরিয়ে মিষ্টি রোদ্দুরের চিক চিক, হালকা বাতাস। এইরকম মনোরম আবহাওয়া প্রেমের জন্য একদম পারফেক্ট।  

পড়াশোনা বন্ধসরস্বতী পুজো মানে পড়াশুনার ছুটি। আজকের দিনে  বাড়ির অভিভাবকরাই আমাদের বলেন “আজকে পড়তে হবে না।” যা আপনি কল্পনাতেও ভাবতে পারেন না! এমনকি যেসব ছাত্রদের সামনে পরীক্ষা তাদেরকেও পড়াশোনা এড়িয়ে যেতে অনুমতি দেওয়া হয়। মা সরস্বতীর পায়ে বই সমর্পণ করে, বন্ধু-বান্ধবদের সঙ্গে ইচ্ছে মতো ঘুরতে যাওয়া এবং ভালোবাসার মানুষটির সাথেও ওইদিন ইচ্ছে মতো ডানা মেলে ওড়া যায়।

ছেলেমেয়েদের সাজগোজের বাহারঃ বছরের এই একটি মাত্র দিনে  বাঙালির ঐতিহ্যবাহী পাজামা-পাঞ্জাবিতে ছেলেরা ও সুন্দর বসন্তি রঙের শাড়িতে বঙ্গললনারা অপরুপা হয়ে ওঠে। এবং এইদিনের আরেকটি উল্লেখযোগ্য দেখার জিনিস হল এইদিনে কিশোর কিশোরীরা ধুতি ও শাড়ী পরে চারিদিক মাতিয়ে দেয়।

অবাধে ডানা মেলা যায়আজকের দিনে যে যার ইচ্ছে মতো সেজে-গুজে প্রত্যেকেই নিজের ইচ্ছায় ঘুরে বেড়ায়। আর ওইদিন ছেলেদেরকে তার প্রেমিকার জন্য স্কুল-কলেজের গেটের বাইরে বা টিউশন ক্লাসের বাইরে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করতে হয় না। এই দিন, প্রতিটি বং কাপল তাদের নিজেস্ব প্রেম গল্প হারিয়ে যায় হাতে হাত রেখে।

নেই কোনো বাধাঃ সরস্বতী পূজা বলে কথা ওইদিন কোথাও বেরোনোর জন্য বাবা-মায়ের অনুমতি নেওয়ারও প্রয়োজন হয় না। স্কুল-কলেজ, টিউশন স্যারের কাছে, বা প্রেমিক-প্রেমিকা দের জন্য পার্ক যেখানে ইচ্ছে সেখানেই আমরা যেতে পারি অবাধে।

সিঙ্গেলদের স্বর্গযদি আপনি সিঙ্গল হন, তবে সরস্বতী পূজো আপনার কাছে একেবারে সেরা দিন আপনার সিঙ্গেলত্ব কাটানোর। হ্যাঁ, সরস্বতী পুজোর দিনে প্রত্যেক সিঙ্গেল বাঙালি ছেলেমেয়েদের সম্ভাবনা থাকে সত্যিকারের ভালবাসার মানুষটিকে খুঁজে পাওয়ার। যদি আপনি ভাগ্যবান হন, তাহলে অবশ্যই সত্যিকারের ভালবাসা খুঁজে পাবেন।

ডেটিংয়ের জন্য সেরা দিন

সরস্বতী পুজোর দিন কাপলদের জন্য আদর্শ জায়গা হয়ে ওঠে বিভিন্ন পার্ক, রেস্তোরাঁ, সিনেমা হল, শপিং মল এমনকি ওইদিন স্কুল-কলেজের এক কোনেও দেখা যায় বং কাপল দের।
প্রেম-প্রেম ভাবে ভরে ওঠে ওইদিন বাংলার আকাশ বাতাস।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here